ঢাকা ১২:৪৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তারাকান্দায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দালালের কাছে জিম্মি রোগীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ১০:২৭:১৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২৪ ৫২ বার পড়া হয়েছে
ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেবাগ্রহীতা রোগীরা দালালের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
তারাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ইমার্জেন্সি ও আউটডোর চালু হওয়ায় দালালের দৌরাত্ম্য বৃদ্ধি পেয়েছে। কতিপয় ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কর্মচারী ও কতিপয় মহিলা দালাল রোগীদের কাগজপত্র ও ডাক্তারের কক্ষে আনা-নেয়ার অজুহাতে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে যায়। আর এসব কাজে দালালদের সহযোগিতা করছে হাসপাতালের আউটসোর্সিংয়ের কর্মচারীরা।  একাধিক রোগী ও রোগীর স্বজনরা জানান, হাসপাতালে সেবা নিতে আসার পর ডাক্তার রোগীর পরীক্ষা-নিরীক্ষা দিলে কম টাকায় করে দেয়ার কথা বলে দালালরা হাসপাতালের বাইরে ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে যায়। এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডা: ফরায়জি মোঃ মাহবুবুল আলম মঞ্জু বলেন, হাসপাতালে কোনো দালাল নেই। হাসপাতালের বাইরে কেউ রোগী টানা-হেঁচড়া করলে এ দায় ভার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নয়।
##@##
আব্দুর রউফ

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

তারাকান্দায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দালালের কাছে জিম্মি রোগীরা

আপডেট সময় : ১০:২৭:১৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২৪
ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেবাগ্রহীতা রোগীরা দালালের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
তারাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ইমার্জেন্সি ও আউটডোর চালু হওয়ায় দালালের দৌরাত্ম্য বৃদ্ধি পেয়েছে। কতিপয় ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কর্মচারী ও কতিপয় মহিলা দালাল রোগীদের কাগজপত্র ও ডাক্তারের কক্ষে আনা-নেয়ার অজুহাতে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে যায়। আর এসব কাজে দালালদের সহযোগিতা করছে হাসপাতালের আউটসোর্সিংয়ের কর্মচারীরা।  একাধিক রোগী ও রোগীর স্বজনরা জানান, হাসপাতালে সেবা নিতে আসার পর ডাক্তার রোগীর পরীক্ষা-নিরীক্ষা দিলে কম টাকায় করে দেয়ার কথা বলে দালালরা হাসপাতালের বাইরে ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে যায়। এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডা: ফরায়জি মোঃ মাহবুবুল আলম মঞ্জু বলেন, হাসপাতালে কোনো দালাল নেই। হাসপাতালের বাইরে কেউ রোগী টানা-হেঁচড়া করলে এ দায় ভার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নয়।
##@##
আব্দুর রউফ